শেভ করার আগেই করবেন যে কাজগুলো

পুরুষেরা নিজের সৌন্দর্য একেকভাবে ফুটিয়ে তোলার জন্য একেকভাবে তাদের দাড়ি সেট করে থাকেন। অনেকেই আছেন দাড়ি রাখেন, অথবা ছোট করে ট্রিম করে তাখেন। আবার অনেকেই আছেন যারা ক্লিনশেভ থাকতে পছন্দ করেন। যারা দাড়ি রাখেন তারা দাড়ি সেটা বা শেভ করা নিয়ে কোনো চিন্তা করেন না। তবে যারা ক্লিনশেভ পছন্দ করেন তাদের কিন্তু অনেক ঝামেলা পহাতে হয়। কারণ রোজ শেভ করার কারণে ত্বকে অনেক রকম সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়া সঠিক নিয়ম মেনে শেভ না করা বা ত্বকের যত্ন না নেওয়ার কারণে অনেক রকম সমস্যা হয়ে থাকে। তাই আসুন আজ আমরা জেনে নেই শেভ করার আগেই কিছু কিছু কাজ করে নিলে আপনি বেঁচে যাবেন অনেক সমস্যা থেকে।

আমরা সবাই জানি যে শেভ করার সময়ে বেশির ভাগ পুরুষের দরকার হয় মাত্র তিনটি জিনিস, শেভিং রেজর, শেভিং ক্রিম আর আফটারশেভ। আবার অনেকে শেভিং ক্রিম আর আফটারশেভ ছাড়াই এই কাজটি সেরে ফেলেন। কিন্তু আপনার চোয়াল এবং চেহারার বৈশিষ্ট্যগুলোকে ভালোভাবে ফুটিয়ে তুলতে হলে কিন্তু এই দুইটিই যথেষ্ট নয়। এছাড়াও ইনগ্রোন হেয়ার, রেজর বার্ন এবং কাটাছেঁড়ার সমস্যাগুলো কমাতে আরো কিছু কাজ আপনি করতে পারেন শেভের আগেই। ফ্যাশন সচেতন পুরুষ হলে কাজগুলো করতে পারেন আপনিও। এই জিনিসগুলো ব্যবহার করলে আফটারশেভ ব্যবহার দরকার নাও হতে পারে আপনার জন্য।

ক্লিনজার: একই সাথে অনেকগুলো কাজ যারা সেরে ফেলতে পছন্দ করেন, এটা তাদের জন্য। শেভের আগে অনেকগুলো পণ্য ব্যবহার না করে এই একটাই ক্লিনজার ব্যবহার করতে পারেন। আর তার পাশাপাশি মুখটাও ধোয়া হয়ে যাবে।

স্ক্রাব: অপরিষ্কার ত্বক শেভ করাটা একেবারেই অনুচিত। আর শেভের আগেই স্ক্রাব করে ফেলাটা ভালো। এটাও আপনার মুখের ত্বক এবং দাড়ি নরম করতে সাহায্য করবে, ময়লা এবং মৃত কোষ আগেই সরিয়ে ফেলবে যাতে তা রেজরে আটকে না যায়।

প্রি-শেভ ক্রিম: রিফ্রেশিং মেনথল, ইউক্যালিপটাস অয়েল, গ্রিন টি অথবা ওট এক্সট্রাক্টের ফ্লেভার সমৃদ্ধ এই ক্রিম আপনার ত্বককে আরামদায়ক একটি শেভের জন্য প্রস্তুত করে তুলবে।

বিয়ার্ড অয়েল: বিয়ার্ড অয়েল বা অন্য কোনো তেল ব্যবহার করলে আপনি বেশ ভালো একটি সুবিধা পাবেন। এটা আপনার ত্বক এবং দাড়িকে নরম করবে। এতে বিভিন্ন অর্গানিক অয়েল, ভিটামিন ই এবং অ্যালো ভেরা থাকে যেগুলো ত্বকের জ্বালাপোড়া কমাতেও সহায়ক।

টনিক: স্যালুনে কাছে গিয়ে যারা ক্ষৌরী করান তারাই জানেন অন্য কারো হাতে শেভ করার অভিজ্ঞতা কতোটা রিল্যাক্সিং। বাড়িতে নিজেও এই আরামদায়ক অনুভূতি পেতে পারেন টনিক ব্যবহার করে। টনিক একটা টাওয়েলে স্প্রে করে এটা মুখে ধরে রাখুন ৩০ সেকেন্ড। এটার ন্যাচারাল অয়েল এবং ভিটামিনের ব্লেন্ড আপনার ত্বক রক্ষা করবে।

শেভিং সোপ: যাদের দাড়ি আছে তাদের জন্যও এটা ভালো, যারা ক্লিন শেভ করতে পছন্দ করেন তাদের জন্য তো বটেই। এটা দাড়ি পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে, শেভিং এর আগে ত্বক এবং দাড়ি কন্ডিশন করতেও কাজে আসে। এমনকি ট্রাভেলের সময়ে হাতের কাছে শেভিং ক্রিম না থাকলে এটাকেই ব্যবহার করতে পারেন।

কিছু টিপস:

এগুলো ছাড়াও শেভ করার জন্য কিছু টিপস মেনে চলতে পারেন।
. ঘুম থেকে উঠেই শেভ করবেন না, এতে কষ্ট হবে
. শেভ করার আধা ঘণ্টা আগে ক্লিনজার ব্যবহার করুন
. কখনোই ভোঁতা ব্লেডের রেজর ব্যবহার করবেন না
. শেভের পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধোয়া শেষ করুন, এতে ফুলে থাকা রোমকূপ বন্ধ হয়ে যাবে
. আফটার শেভের বদলে একটা অয়েল ফ্রি ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে পারেন