ইউএস আর্মি ওয়ার কলেজের বাংলাদেশ মিশন পরিদর্শন

শুক্রবার অধ্যাপক কর্নেল ল্যান লাইলেসের নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্র আর্মি ওয়ার কলেজের ২৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন পরিদর্শন করে।

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন প্রতিনিধি দলকে স্বাগত জানান। তিনি জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ কর্তৃক শান্তিরক্ষা কার্যক্রম সংস্কার সংক্রান্ত বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থান তুলে ধরেন।

সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস চরমপন্থা দমনে বাংলাদেশ সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির কথা উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ। এছাড়া বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর মধ্যে বহুমুখী সহযোগিতা বাড়ছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

বাংলাদেশ মিশনের ডিফেন্স অ্যাডভাইজার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খান ফিরোজ আহমেদ প্রতিনিধি দলকে একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের ভূমিকা ও বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।

খান ফিরোজ জানান, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশ সামনের সারির একটি দেশ। এ পর্যন্ত বাংলাদেশের ১ লাখ ৫৬ হাজার ৩২৮ জন শান্তিরক্ষী জাতিসংঘের ৫৪টি পিস কিপিং মিশনে অংশ নিয়েছেন, যার মধ্যে রয়েছেন ১ হাজার ৪৩৫ জন নারী সদস্য। আর বর্তমানে ১১টি মিশনে নিয়োজিত রয়েছেন ৭ হাজার ৯১ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী। দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় এ পর্যন্ত শহীদ হয়েছেন ১৪৩ জন, আর আহত হয়েছেন ২২৩ জন।

প্রতিনিধি দলকে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের ৩০ বছর পূর্তি উপলক্ষে একটি ভিডিও চিত্রও প্রদর্শন করা হয়।

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের সুনামের ও পারস্পরিক অভিজ্ঞতা বিনিময়ের অংশ হিসেবে প্রতি বছর ইউএস আর্মি ওয়ার কলেজের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ মিশন পরিদর্শনে আসে। ২৫ সদস্যের এই দলে ওই কলেজে অধ্যয়নরত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাও ছিলেন।

পরিদর্শনে আসার জন্য বাংলাদেশ মিশনকে নির্বাচিত করায় মাসুদ বিন মোমেন ইউএস আর্মি ওয়ার কলেজের প্রতিনিধি দলকে ধন্যবাদ জানান।