মুক্তি হবে কি খালেদার?

 

 

কুমিল্লার দুই মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন স্থগিত রেখে রাষ্ট্রপক্ষকে নিয়মিত আপিল করতে বলেছেন আপিল বিভাগ। ২৪ জুন এ বিষয়ে শুনানির জন্য দিনও ধার্য করেছেন আদালত।

সোমবার (২৮ মে) বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের হাইকোর্ট বেঞ্চ কুমিল্লার দুই মামলায় খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিন দেন। নড়াইলের আরেকটি মামলা উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন আদালত।

এতে মনে হয়, ঈদুল ফিতরের আগে মুক্তি মিলছে না বিএনপি প্রধানের।

বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ খালেদার জামিন স্থগিত রেখে নিয়মিত আপিলের এ আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। খালেদার পক্ষে শুনানি করেন খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জে মোহাম্মদ আলী, জয়নুল আবেদীন ও ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন।

ওই আদেশের পর সোমবার ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছিলেন, অফিসিয়ালি খালেদা জিয়া তিনটি মামলায় ‘অ্যারেস্ট’ আছেন। একটি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট, যেটাতে আগেই জামিন পেয়েছেন। আর বাকি দুইটায় আজ জামিন হয়েছে। এখন অন্য কোনো মামলায় ‘শ্যোন অ্যারেস্ট’ নেই। আজকের আদেশের পর খালেদা জিয়ার মুক্তিতে আইনগত বাধা নেই। তবে এরপর সরকারের যদি ‘অসৎ উদ্দেশ্য’ থাকে তাহলে কোনো মামলায় ‘অ্যারেস্ট’ দেখাবে।

বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগ স্থগিতাদেশ ‘কন্টিনিউ’ রেখে ২৪ জুনের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষকে সিপি (নিয়মিত আপিল) করতে বলেন। আর এ কারণে ২৪ জুনের শুনানির আগে খালেদার মুক্তির কোনো সুযোগ নেই বলে মনে করছেন।

উইমেন জার্নাল/আরএস